শেষ পর্যন্ত স্বপ্ন পূরণ হচ্ছে না লেগি বিপ্লবের

তার ইচ্ছে প্রবল। মূলতঃ ব্যাটসম্যান হয়েও লেগ স্পিনার হিসেবে জাতীয় দলে সুযোগ পেয়ে অভিষেকে নজর কাড়া আমিনুল ইসলাম বিপ্লবের স্বপ্ন ছিল আরও বড় কিছু করার। নিজেকে মেলে ধরার। মাঠে দলকে সার্ভিস দিতে মুখিয়েও ছিলেন ২০ বছরের এই উদ্যমী তরুণ।

সোমবার বাঁ-হাতে ব্যান্ডেজ নিয়েও প্র্যাকটিসে প্রচুর পরিশ্রম করেছেন। নেটে বোলিং করেছেন বিপ্লব; কিন্তু হায়! হঠাৎ তালু আর আঙ্গুলের সংযোগস্থলের ইনজুরি তার স্বপ্নটাই দিল ভেঙে। আজ (মঙ্গলবার) স্বপ্নের ফাইানাল আর খেলা হচ্ছে না তার।

তিনি থাকছেন না। আগেরদিন হেড কোচ রাসেল ডোমিঙ্গোর কথায়ই মিলেছিল এর পরিষ্কার ইঙ্গিত। ফাইনালের আগে প্রেস মিটে হোড কোচ ডোমিঙ্গো সোমবার পরিস্কার করে বলে দিয়েছেন, ‘আমার অভিধানে শতভাগ ফিট ছাড়া আর কোন ক্রিকেটারের জায়গা নেই। আমি চাই না কেউ হাতে সেলাই নিয়ে খেলুক। আর এমন নয়, আমাদের কোন বিকল্প নেই। আছে। আমাদের আরও সহায়ক উপাদান এবং বিকল্প আছে। তাই আমি চাই না হাতে সেলাই নিয়ে বিপ্লব খেলুক।’

হেড কোচ যখন এমন কথা বলেন, তখন বুঝতে বাকি ছিল না লেগস্পিনার বিপ্লব থাকছেন না ফাইনালে। তারপরও কেউ মনে করেছিলেন শেষ মুহূর্তে হয়ত একজন লেগ স্পিনার খেলানোর চিন্তায় বিবেচনায় আসতে পারেন নতুন স্পিন সেনসেশন আমিনুল ইসলাম বিপ্লব।

কিন্তু বাস্তবে বিপ্লবের খেলার কোনই সম্ভাবনা নেই। আজকের সন্ধ্যার ফাইনালের জন্য যে ১২ জনের দল সাজানো হয়েছে, সেখানেই নেই বিপ্লবের নাম।

এ তরুণ নিজেকে খানিক দূর্ভাগা ভাবতেই পারেন। অভিষেকে নজর কাড়ার পরও ইনজুরি বাধা হয়ে দাঁড়ালো। তাই এই আসরে আর তার মাঠে নামা হলো না। এখন আগামী নভেম্বর সামনে ভারতের সাথে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ তাদেরই মাটিতে।

সেখানে স্পিনে অতি দক্ষ ভারতীয়দের বিপক্ষে এই তরুণকে নেয়া হবে কি না? স্পিনে মাস্টার রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলিদের সামনে বিপ্লবকে উপস্থাপন করা হবে কি না? নির্বাচক ও টিম ম্যানেজমেন্ট অত বড় ঝুঁকি নেবেন কি না, সেটাই দেখার।