ফসলি জমি রক্ষায় তৎপর প্রশাসন ফের অভিযানে ভেদরগঞ্জে তিনটি ভেকু মেশিন বিনষ্ট

 

শরীয়তপুর প্রতিনিধি।।
শরীয়তপুরে কৃষকের ফসলি জমি ও সরকারী খাস জমি রক্ষায় তৎপরতা অব্যাহত রেখেছে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন। গতকাল বুধবার বিকেলে ভেদরগঞ্জ উপজেলার আরশিনগর ইউনিয়নের ফেলিরচর এলাকায় কৃষকের ফসলি জমি ভেকু মেশিন দিয়ে মাটি কেটে মাছের ঘের করার অপরাধে তিনটি ভেকু মেশিন বিনষ্ট করেছে ভ্রাম্যমান আদালত।

গতকাল বিকেলে ভেদরগঞ্জ সহকারী কমিশনার (ভূমি) শংকর চন্দ্র বৈদ্য এর নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এর আগেও একই স্থানে ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানভীর আল নাসিফ ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন। ঐ সময়েও তিনটি ভেকু বিনষ্ট করেন এবং ইদ্রিস মাদবরের ছেলেদের ১ লাখ টাকা জরিমানা করেন।

স্থানীয় ও উপজেলা প্রশাসন সূত্র মতে, ওই এলাকার প্রভাবশালী মুক্তিযোদ্ধা মাস্টার ইদ্রিস মাদবরের ছেলে তাওহীদ মাদবর ও ওয়ালিদ মাদবর দীর্ঘদিন যাবত সখিপুরের বিভিন্ন এলাকায় কৃষকের ফসলি জমি জোরপূর্বক দখল করে মাছের ঘের করে আসছেন। সাম্প্রতি উপজেলার আরশিনগর ইউনিয়নের ফেলিরচর এলাকায় সরকারী খাস জমি ও কৃষকের ফসলি জমি জোরপূর্বক দখল করে ভেকু মেশিন দিয়ে মাটি কেটে মাছের ঘের করছিলেন তারা। গত ৮ ফেব্রæয়ারি ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানভীর আল নাসিফ ওই এলাকায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে তিনটি ভেকু বিনষ্ট করেন এবং ইদ্রিস মাদবরের ছেলেদের ১ লাখ টাকা জরিমানা করেন।
কিন্তু এর দু’দিন পর হতে প্রশাসনের নির্দেশনা উপেক্ষা ফের মাটি কাটা শুরু করে চক্রটি। স্থানীয় আপত্তি জানালেও তোয়াক্কা করেনি। বিষয়টি জেলা প্রশাসক পারভেজ হাসান জানতে পেরে ফের অভিযান পরিচালনায় এবং কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশনা দেন। এরপরই বুধবার বিকেলে অভিযান পরিচালনা করেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) শংকর চন্দ্র বৈদ্য।

ভেদরগঞ্জ সহকারী কমিশনার (ভূমি) শংকর চন্দ্র বৈদ্য বলেন, আরশিনগরে কৃষকের ফসলি জমি কেটে মাছের ঘের করার অপরাধে অভিযান চালিয়ে ৩টি এক্সকেভেটর বিনষ্ট করা হয়। পুনরায় চেস্টা করা হলে আইনানুগ কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে, মাছের ঘের করা বন্ধ করায় প্রশাসনের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছে স্থানীয় বাসিন্দারা। অভিযান পরিচালনায় পরপরই সেখানে এবং আরশিনগর বাজারে কয়েক শতাধিক স্থানীয় বাসিন্দা জড়ো হয় এবং প্রশাসনের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।